শাটল ট্রেন ও বগি বৃদ্ধির দাবিতে উত্তাল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

0 63

শাটল ট্রেন ও বগি বৃদ্ধির দাবিতে দফায় দফায় মানববন্ধন ও মিছিল- সমাবেশ করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এতে একাত্মতা ঘোষণা করে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনও অংশ নেয়।

চবির ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম শাটল ট্রেন ও এর বগি বৃদ্ধি, সংস্কার এবং ছাত্রবাস চালুর দাবিতে দীর্ঘদিন থেকেই আন্দোলন করে আসছিল শিক্ষার্থীরা।

গতকাল চট্টগ্রামের ষোলশহর রেলওয়ে স্টেশনে দুর্ঘটনায় সমাজতত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী রবিউল আলমের দুই পা বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর এই দাবি জোরদার হয়।

বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) সকাল সাড়ে সাতটার দিকে ষোলশহর স্টেশনে আহত রবিউলের চাকরি নিশ্চিতকরণ, শাটল ট্রেন ও এর বগি বৃদ্ধি ও ডাবল রেললাইন চালুসহ ৭ দফা দাবিতে মানববন্ধন করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় চবির ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী মঞ্জুরুল হাসানের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন রবিউলের বন্ধু ও সমাজতত্ব বিভাগের ছাত্র আলমগীর,পালি বিভাগের শুভ মারমা, কিরণ মারমা, শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (আইইআর) ইমতিয়াজ ইমতু ও ফাইন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী প্রতীক রায়।

পরে ‘আর নয় ভোগান্তি, এবার হোক মুক্তি’ স্লোগানে বেলা ১১ টার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার চত্বরে আবারও সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আহত রবিউলের চিকিৎসার ব্যায়ভার বহন ও তার চাকরি নিশ্চিত করা, শাটল ট্রেন ও এর বগি বৃদ্ধি, ডাবল লাইন চালু, শিক্ষার্থীবাস চালু এবং শাটল ট্রেনে নিরাপত্তা জোরদার এই ৪ দফা দাবি নিয়ে মানববন্ধন করা হয়।

এসময় অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী দেওয়ান তাহমিদের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন পালি বিভাগের শুভ মারমা, অর্থনীতি বিভাগের দিদার, হাসিবুল হাসান, রাজেশ্বর দাশগুপ্ত ও পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আশরাফী মিতু। এ মানববন্ধনে একাত্মতা ঘোষণা করে চবি শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের নেতাকর্মীরা অংশ নেয়।

দুপুর ১২ টার সময় ‘১২ বগির শাটল চাই’ স্লোগানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে শাখা ছাত্রলীগ। চবি ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আলমগীর টিপুর নেতৃত্বে মানবন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি সুজন, সাংগঠনিক, সহ সভাপতি রেদুয়ানুল হক রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আরমান, মোহাম্মদ ফারুক, যুগ্ম সম্পাদক আবু তোরাব পরশ, গ্রন্থাগার বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল টিপু ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য সাবরিনা চৌধুরী প্রমুখ।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে বক্তারা বলেন, প্রতি বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেনে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। কিন্তু প্রশাসন এ ব্যাপারে কোন উদ্যোগ নেয়না।

পালি বিভাগের শিক্ষার্থী শুভ মারমা তার বক্তৃতায় বলেন, প্রশাসন উদ্যোগ না নিলে এই প্রশাসন কাদের জন্য? আমরা প্রশাসনকে বার্তা দিতে চাই- আর কোন রবিউলের স্বপ্ন যেন এই ট্রেনে কাটা না পড়ে।

তিনি বলেন, প্রতি বছর সিনেট সভায় বিভিন্ন অংকের বাজেট পাশ করে প্রশাসন। কিন্তু কার উদরপূর্তির জন্য তারা এই বাজেট পাশ করে? যদি শিক্ষার্থীদের কাজে না আসে।

উল্লেখ্য, গতকাল (৮ আগস্ট) সকাল ৮.২০ মিনিটে চট্টগ্রামের ষোলশহর স্টেশনে বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেনে দুই পা হারায় চবি সমাজতত্ব বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী রবিউল আলম। তার বাড়ি কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নিলায়। সে এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.